৩ রুট বাদে অন্য সব গন্তব্যে আবারো স্থগিত বিমানের ফ্লাইট

তিন আন্তর্জাতিক গন্তব্য ছাড়া অন্য রুটে ফ্লাইট স্থগিতের সময় বাড়িয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) বিমানের ওয়েবসাইটে এই তথ্য জানানো হয়।এতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) পরিস্থিতিতে কুয়েত, কলকাতা ও দিল্লি ছাড়া অন্য সকল আন্তর্জাতিক গন্তব্যে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ফ্লাইট স্থগিত থাকবে।

পরিস্থিতি উন্নতি সাপেক্ষে ফ্লাইট সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত যথাসময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে।দেশে করোনার সংক্রমণ বাড়ায় গত ২৪ মার্চ সব আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। পরবর্তী সময়ে ১ জুন থেকে সীমিত পরিসরে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয় সংস্থাটি।

কিন্তু অনুমতি দিলেও এখন লন্ডন ও দুবাই ছাড়া সকল রুটে ফ্লাইট বন্ধ রেখেছে বিমান।বিভিন্ন রুটে কয়েক দফা ফ্লাইট স্থগিতের সময়সীমা বাড়িয়ে সর্বশেষ ৩১ আগস্ট পর্যন্ত করা হয়। মঙ্গলবার আরেক দফা সময় বাড়িয়ে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ফ্লাইট স্থগিত করলো রাষ্ট্রয়াত্ত এই উড়োজাহাজ সংস্থাটি।

আরো পড়ুন….করোনার মহামারি থেকে জনগণকে মুক্তি দিতে উৎপাদনের সঙ্গে সঙ্গেই ভ্যাকসিন কিনতে চায় সরকার। এ জন্য সরকারের অর্থ, স্বাস্থ্য ও পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জোরালোভাবে কাজ করছে। দেশের প্রতিটি নাগরিকের জন্য এ ভ্যাকসিন নিশ্চিতে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা ব্যয় হতে পারে বলেও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কার্মকর্তা জাগো নিউজকে বলেন, ‘দেশে মাথাপিছু আয় কম হওয়ায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাধ্যমে মোট জনগণের ২০ শতাংশের জন্য ফ্রি ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে। তবে সেক্ষেত্রে দেরি হতে পারে। তাই দ্রুত ভ্যাকসিন পেতে কেনার দিকেই আগ্রহী সরকার। আর আমাদের টোটাল জনগণের নিকট এ ভ্যাকসিন পৌঁছাতে আনুমনিক কত টাকা খরচ হতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে জানতে পেরেছি যে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা লাগতে পারে।’