হু হু করছে বাড়ছে স্বর্ণের দাম দেখেনিন সর্বশেষ মূল্য

মধ্যপ্রাচ্যে যু’দ্ধের আ’শঙ্কা দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অ’স্থির হয়ে উঠেছে স্বর্ণের বাজার। যার প্রভাব বাংলাদেশেও এসে পড়েছে। ফলে গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বাড়লো স্বর্ণের দাম। যা এসে ঠেকেছে ৬০ হাজার টাকার উপরে।বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২২, ২১, ১৮ ক্যারেট ও সনতন পদ্ধতিতে স্বর্ণের ভরিতে দাম বেড়েছে ১ হাজার ১৬৬ টাকা। রবিবার থেকে এটি কার্যকর হবে।

অর্থাৎ, প্রতি ভরি ২২ ক্যারেট স্বর্ণের দাম বেড়ে ৬০ হাজার ৩৬১ টাকা হয়েছে। এছাড়া ২১ ক্যারেট ৫৮ হাজার ২৮ টাকা, ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ ৫৩ হাজার ১৩ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণ ৪০ হাজার ২৪০ টাকা হয়েছে।বাজুস বলছে, বৈশ্বিক অস্থিরতার কারণে আন্তর্জাতিক বাজার ও স্থানীয় বুলিয়ন মার্কেটে স্বর্ণের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এ দর বাড়ানো হয়েছে।

এদিকে,ভারতের বাজারে এবার বাড়তে শুরু করেছে সোনার মূল্য। গত কিছুদিন ধরে টানা দরপতনের পর এবার উর্ধ্বমূখি হচ্ছে সোনার মূল্য। পূজার আগে তাই চিন্তার ভাঁজ পড়ছে মধ্যবিত্তের কপালে।গত বৃহস্পতিবারের তুলনায় আজ শনিবার (৩ অক্টোবর) কিছুটা বাড়তে দেখা গিয়েছে সোনার মূল্য। কলকাতার বাজারে এদিন ১০ গ্রাম হলমার্ক সোনার মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১৮০ টাকা পর্যন্ত।

শুধু সোনাই নয় বৃদ্ধি পেয়েছে রুপার মূল্যও। প্রতি কিলো রুপাতে এদিন দাম বাড়তে দেখা গিয়েছে ৪০০ টাকা।শনিবার সোনার মূল্য বৃদ্ধি পেলেও চলতি মাসে কয়েক দফা কমেছিল এই ধাতবের মূল্য। সর্বশেষ গত (২৮ সেপ্টেম্বর) ভারতের বাজারে প্রতি দশ গ্রাম সোনা বিক্রি হয়েছিল ৪৬ হাজার টাকা থেকে ৪৮ হাজারের মধ্যে।এদিন দিল্লিতে ২২ ক্যারেটের ১০ গ্রাম সোনা বিক্রি হয়েছিল ৪৮ হাজার ৩৫০ টাকায়। কলকাতার বাজারে একই পরিমাণ সোনা ক্রয় করতে ব্যয় করতে হয়েছিল ৪৮ হাজার ৮৬০ টাকায়।

অন্যদিকে সেদিন সবচেয়ে কম মূল্যে সোনা বিক্রি হতে দেখা গিয়েছিল কেরালার বাজারে। ২২ ক্যারেটের ১০ গ্রাম সোনা এদিন বিক্রি হয়েছে ৪৬ হাজার ৯০০ টাকায়। কাছাকাছি মূল্য বিরাজ করেছে মেঙ্গালোর, বেঙ্গালোর এবং মাইসোরে।রুপার বাজারেও বেশ স্থিতিশীলতা দেখা গিয়েছিল গত সপ্তাহেই। ভারতের বাজারে ২৮ সেপ্টেম্বর ১০ গ্রাম রুপা বিক্রি হয়েছে মাত্র ৫৮০ টাকায়।তবে সপ্তাহের ব্যবধানে এমন মূল্য বৃদ্ধিতে কিছুটা বিপাকে পড়তে হয়েছে সাধারণ মানুষকে।

আন্তর্জাতিক বাজারে দরপতন না হলে তাই মূল্য কমার কোনো লক্ষণ নেই ভারতের বাজারে এমনটা বলছেন বিশ্লেষকরা।উল্লেখ্য, মহামারী করোনা ভাইরাসের শুরুতে বিশ্ব বাজারে সোনার মূল্য কিছুটা কম থাকলেও পরবর্তীতে তা ধারাবাহিকভাবে বাড়তে থাকে। তবে গত সেপ্টেম্বর মাসে শুরু হয় দরপতন। এই প্রভাব পড়েছিল ভারতের বাজারেও। আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে তাল মিলিয়ে ভারতেও কমেছিল সোনার মূল্য। বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন বছরের শেষের দিকে কিছুটা বাড়তে পারে সোনার বাজার দর।