স’রকারি ও’ষুধ বা’ড়ি নে’ওয়ার প’থে ধ’রা খে’লেন না’র্স

ভোলায় হাসপাতাল থেকে স’রকারি ও’ষুধ বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়দের কাছে ধরা খেয়েছেন তৃপ্তি রায় নামের এক নার্স। গতকাল রোববার দুপুরে হাসপাতাল থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ও’ষুধ বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। তৃপ্তি রায় জে’লার বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কর্মরত আছেন। স্থানীয়রা জানান, তৃপ্তি রায় দীর্ঘদিন ধরে সিনিয়র স্টাফ নার্স হিসেবে কর্মরত থাকায় বোরহানউদ্দিন

উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সের সকলের সঙ্গে তার সুসর্ম্পক তৈরি হয়। এই সুবাদে তিনি বিভিন্ন সময় হাসপাতাল থেকে অ’বৈধভাবে ও’ষুধ বাড়ি নিয়ে যেতেন। একইভাবে রোববার হাসপাতালের বহির্বিভাগের ও’ষুধ সরবরাহ কেন্দ্র থেকে ৪৮ পাতা ও’ষুধ নিয়ে তিনি বাড়ি যাচ্ছিলেন। এ সময় পথে স্তারা তাকে ধরে ফে’লেন।

এত ও’ষুধ কোথায় ও কেন নিয়ে যাচ্ছেন প্রশ্ন করলে তৃপ্তি রায় কোনো উত্তর না দিয়ে দ্রুত আবার হাসপাতালে চলে যান। পরে স্থানীয়রা পিছু পিছু হাসপাতালের ওই কক্ষে যান। এ সময় তারা তৃপ্তির হাতে থাকা বক্স ও ইউনিফর্মের পকেট থেকে বিভিন্ন ধরনের ৪৮ পাতা ও’ষুধ বের করেন। তৃপ্তি রায়ের এ ও’ষুধ বাড়ি নেওয়ার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে অ’ভিযুক্ত নার্স তৃপ্তি রানী রায় জানান, তিনি এসব ও’ষুধ স’রকারি নিয়ম অনুযায়ী টিকে’টের মাধ্যমে তার আত্মীয়-স্বজনদের জন্য নিয়ে যাচ্ছিলেন। প্রয়োজনে মাঝে মাঝেই এভাবে ও’ষুধ নিয়ে যান বলে স্বীকার করেন তিনি।জানতে চাইলে বোরহানউদ্দিন উপজে’লা স্বা’স্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তপতি চৌধুরী বলেন,

‘বি’ষয়টি আমি লোকের মুখে শুনেছি। তিনি যদি এ ধরনের কাজ করে থাকেন তাহলে তার বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’এ ব্যাপারে লিখিত অ’ভিযোগ পেলে ত’দন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান ভোলার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী।