মালয়েশিয়ায় সেই রায়হানকে সব অভিযোগ থেকে অব্যাহতি

ব্যা’পক জ’ল্পনা-ক’ল্পনার অব’সান ঘটিয়ে সকল অ’ভিযো’গ থেকে অব্যা’হতি দেওয়া হয়েছে মালয়েশিয়ায় গ্রে’প্তার বাংলাদেশি তরুণ রায়হান কবিরকে। দেশে ফিরতে এখন তার আর কোনো বা’ধা নেই। করোনা টেস্টের ফলাফল ও বিমানের টিকিটের ফ্লাইট কনফার্ম হলেই তাকে সব অ’ভিযো’গ থেকে অব্যা’হতি দিয়ে নিজ দেশে ফেরাতে সম্মত হয়েছে দেশটির অভিবাসন বিভাগ।

আজ বুধবার রায়হান কবিরের আইনজীবী সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এই ত’থ্য নি’শ্চি’ত করেছেন। বাংলাদেশী মো. রায়হান কবিরের দুই আইনজীবীকে সুমিতা শাথিন্নি ও সি সেলভরাজা জানান, কোভিড -১৯ এর স্ক্রিনিংয়ের ফলাফল ভালো হওয়ার পরে ফ্লাইটের টিকিট পাওয়া গেলে তাকে বাড়ি পাঠানো হবে। ই’মিগ্ৰে’শন বিভাগের পক্ষ থেকে আর কোনো অ’ভিযো’গ আনা হবে না।

মালয়েশিয়ায় বসবাসরত অভিবাসীদের প্রতি দেশটির আ’ইনশৃ’ঙ্খ’লা বাহি’নী কর্তৃক চলতি ল’কডা’উনে বৈ’ষম্যমূ’লক ও বর্ণবা’দী আচরণ করা হয়েছে বলে ”ল’ক’ড আপ ইন মালয়েশিয়া’স ল’কডা’উন’ শিরোনামে ২৫ মিনিটের একটি ডকুমেন্টারি কয়েক সপ্তাহ আগে আল-জাজিরা টেলিভিশনে প্রকা’শিত হলে ব্যা’পক তো’লপা’ড় শুরু হয় মালয়েশিয়া জুড়ে। বসবাসরত অভিবাসীদের প্রতি দেশটির আ’ইনশৃ’ঙ্খ’লা বা’হি’নী কর্তৃক চলতি ল’কডা’উনে বৈ’ষ’ম্যমূলক ও ব’র্ণবা’দী আচরণ করা হয়েছে বলে একটি সাক্ষাৎকার দেয়।”

‘লকড আপ ইন মালয়েশিয়া’স লকডাউন’ শিরোনামে ২৫ মিনিটের একটি ডকুমেন্টারি আল-জাজিরা টেলিভিশনে প্রকা’শিত হলে ব্যা’পক তো’লপা’ড় শুরু হয় মালয়েশিয়া জুড়ে। এর পর পরই রায়হান কবিরকে গ্রে’প্তার করতে অ’ভিবা’সন আইনের ১৯৫৯/৬৩ ধা’রায় তার বি’রু’দ্ধে তদ’ন্তের সহযোগিতা করার জন্য তাকে গ্রে’প্তারের জন্য জনসাধারণের সহযোগিতা চাওয়া হয়।

তার কিছু দিন পর ২৪ জুলাই রাজধানীর জালান পাহাংয়ের একটি কনডোমোনিয়াম থেকে গো’পন সংবাদের ভি’ত্তিতে রায়হান কবিরকে গ্রে’প্তার করা হয়। বর্তমানে রায়হান কবির অ’ভিবা’সন বিভাগের হেফা’জতে রয়েছে বলে জানা গেছে।