ভাইরাল হওয়া মা-ছেলের সঙ্গে দেখা করলেন মুশফিক

রাজধানী ঢাকায় পল্টন এলাকার মাঠ। বোরকা পরিহিত এক মা ও সন্তান মিলে খেলছেন ক্রিকেট। বল ছুঁড়ছে ছোট্ট শিশু শেখ ইয়ামিন সিনান। আর ব্যাট হাতে বোরকা পরিহিত মা ঝর্ণা আক্তার। মা-ছেলের ক্রিকেট খেলার এমন অভাবনীয় দৃশ্য নজর কেড়েছে সবার। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ জাতীয় গণমাধ্যমগুলোতে।জানা গেছে, আরামবাগের একটি মাদ্রাসার ছাত্র ইয়ামিন সিনান।

পড়াশোনার পাশাপাশি কবি নজরুল ক্রিকেট একাডেমিতে অনুশীলন করে সে। তবে সেদিন তার সতীর্থ কিংবা কোচ নির্ধারিত সময়ে না পৌঁছানোয় মায়ের সঙ্গেই অনুশীলনে নেমে পড়েছিল ছোট্ট ইয়ামিন।তবে মা-ছেলের ক্রিকেট খেলার সেই ছবি নিয়ে হয়েছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। সন্তানের আবদার রক্ষা করে তাকে আনন্দ দেওয়ার জন্য বোরকা পরা অবস্থায়ও ক্রিকেট খেলেছেন বলে সব সমালোচনাকে উড়িয়ে দিয়েছেন মা ঝর্ণা আক্তার।

আবারো ভার্চুয়াল দুনিয়ায় আলোচনায় এসেছেন তারা। তবে এবার তাদের আলোচনায় এনেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম। সরাসরি মাঠে গিয়ে সেই মা-ছেলেকে চমকে দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম।মাঠে গিয়ে তাদের সঙ্গে দেখা করেছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল খ্যাত ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে মা-ছেলের দেখা করার ছবিটি এখন ভেসে বেড়াচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তাদের সঙ্গে দেখা করে পাশে থাকার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি।

আরো পড়ুন…সালটা 2016, বাচ্চাটির বয়স 10 বছর কিন্তু ওজন 150 কেজি, এরকমই অদ্ভুদ একটা ঘটনার কথা জানতে পেরেছিলাম সেসময়। বাচ্চাটির নাম ছিল আর্য পারমানার। সবথেকে স্থূলকায় কিশোর হিসেবে গোটা বিশ্বে সাড়া ফেলেছিল সে।ছোটবেলায় স্বাভাবিক থাকলেও 2014 সাল থেকে ওজন বাড়তে শুরু করে আর্যর। সে জানিয়েছিল খেলতে ইচ্ছা করলেও সে খেলতে পারতোনা, ওঠাবসা, হাঁটাচলা সবেতেই তার কষ্ট হতো। কিন্তু নিজের ইচ্ছা শক্তি ও পরিশ্রমে আবারো একবার সবার নজরে উঠে আসলো সে।এখন ইন্দোনেশিয়ার এই কিশোর 150 কেজি থেকে 87 কেজি ওজন ঝরিয়েছে। বিপুল পরিমাণ ওজন কমিয়ে ফের একবার বিশ্বের নজর কেড়েছে আর্য। কিন্তু চার বছরের মধ্যে 87 কেজি ওজন ছড়ানোর পেছনে রহস্য কি!না কোনো অ’স্ত্রোপচারের সাহায্য নয় শুধুমাত্র ডায়েট আর ওয়ার্ক আউটে বাজিমাত করেছে সে। ইন্দোনেশিয়ার সরকার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছিল তার। মাত্র চার বছরে 87 কেজি ওজন কমিয়ে আর্য দেখিয়ে দিল ইচ্ছাশক্তি থাকলে মানুষ সব করতে পারে।