বিয়ে বাড়ি থেকে ফেরার পথে সড়ক ঝড়ল ১৪ জনের প্রাণ

ভারতের উত্তর প্রদেশে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে সড়ক দু`র্ঘ`টনায় ৬ শিশুসহ কমপক্ষে ১৪ জন নি`হ`ত হয়েছেন।ভা`রতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যম জানায়, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১২টায় প্র`তাপগড় ম`হাসড়কে একটি দ্রু`তগামী ট্রাক ওই যাত্রীবাহী গা`ড়িটিকে চাপা দেয়। এতে `দুমড়ে-মু`চড়ে যায় গাড়িটি।প্রতাপগড়ের পু`লিশ সু`পার অ`নুরাগ আ`র্য জানান, জানান, দু`র্ঘটনাকবলিত স্থানের খাদ থেকে ট্রা`কটি টেনে তোলা হয়েছে।

হ`তাহ`তের প্র`ত্যেক প`রিবারকে সহায়তার আ`শ্বাস দিয়েছে স্থা`নীয় প্রশাসন।তিনি আরো বলেন, দু`র্ঘটনায় নি“হ`ত ৬ শিশুর বয়স ৭ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। বাকি আ`টজনের বয়স ২০ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে। তাদের ম`রদেহ ম`য়নাতদন্তের জন্য হা`সপাতালে পা`ঠানো হয়েছে।দু`র্ঘট`নার শি`কার এসইউভি কার ও ট্রা`কের মা`লিকের সঙ্গে যোগাযোগের চে`ষ্টা করা হচ্ছে। দু`র্ঘটনার প্র`কৃত কারণ জানা না গেলেও রাজ্য সরকার অনুসন্ধানে নেমেছে বলে জানিয়েছেন পু`লিশের এ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুনঃমহামারি করোনার মধ্যে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ একটি সান্ধ্য কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা নিতে যাচ্ছে। ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণে সহযোগিতার জন্য ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকদের পাঠানো অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক মুহাম্মাদ আব্দুল মঈন স্বাক্ষরিত একটি চিঠি থেকে জানা যায়,

শুক্রবার (২০ নভেম্বর) আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের এমবিএ (ইভনিং) প্রোগ্রামের (৪৫তম ব্যাচ) ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। সকাল ১১টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত এক ঘণ্টায় এই পরীক্ষা নেয়া হবে।তবে এই পরীক্ষার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে কোনো বিজ্ঞপ্তি বা তথ্য উল্লেখ করা হয়নি।

এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানকেও জানানো হয়নি। উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘বিষয়টা আমাদের জানানো হয়নি। সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানার পর আমি ডিন সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি। পরীক্ষাটা ক্যাম্পাসে হবে না শুনেছি। তবে এটা কোন ধরনের পরীক্ষা, কাদের পরীক্ষা, কোন পদ্ধতিতে হচ্ছে এই পরীক্ষা, বিষয়গুলো আমি জানতে চেয়েছি। উনি বলেছেন, শুক্রবার আমাকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন।

প্রকৃত তথ্য না জেনে তো কথা বলা কঠিন।’উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে বেশি সান্ধ্য কোর্স আছে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে। অনুষদের নয়টি বিভাগের প্রতিটিতেই সান্ধ্য কোর্স আছে। এসব কোর্সে প্রতি বছর ৪৫টি ব্যাচে দুই হাজার ৯৬৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হন। ক্লাস নেন ২৩০ জন শিক্ষক।