নুরদের নতুন দলের স্লোগান ঠিক হয়েছে, নামে থাকছে ‘অধিকার’

ডাকসুর সদ্য সাবেক ভিপি নুরুল হক ও তাঁর সহযোগীদের রাজনৈতিক দলের আত্মপ্রকাশের প্রস্তুতি শেষের দিকে। চলতি বছরের মধ্যেই একটি পূর্ণাঙ্গ রাজনৈতিক দল গঠন করা হবে। জানা গেছে, ঢাকায় দুটি আসনের উপনির্বাচনের পরই ঘোষণা করা হবে নতুন দলের নাম।ভিপি নুরদের নতুন রাজনৈতিক দলের স্লোগান হবে ‘জনতার অধিকার, আমাদের অঙ্গীকার’র। এখনো চূড়ান্ত করা না গেলেও দলটির নামের সঙ্গে ‘অধিকার’ শব্দটি যুক্ত থাকছে বলে জানান তাঁরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইতোমধ্যে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের নানা প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এরই মধ্যে দলের সহযোগী উইং ছাত্র অধিকার পরিষদ, যুব অধিকার পরিষদ, প্রবাসী অধিকার পরিষদ ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ গঠনের কাজ শেষ হয়েছে। বর্তমানে চলছে পেশাজীবী পরিষদ গঠনের কাজ।চলতি বছরের মধ্যে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনের বিষয়ে নুরুল নুর বলেন, ‘এ বছরের মধ্যেই দল গঠন করব।

প্রস্তুতি হিসেবে বর্তমানে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম গড়ার কাজ করছি। এ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের চিন্তাভাবনাকে আমলে নিয়ে তার প্রতিফলন ঘটিয়ে দলের ইশতেহার তৈরি করা হবে। জনগণের মতামত জানতে মতবিনিময় করা হবে। সেপ্টেম্বরের শেষ ভাগে অথবা অক্টোবরের শুরুতে এই নাগরিক প্ল্যাটফর্ম ঘোষণা করা হবে।’এদিকে আসন্ন ঢাকা-১৮ ও ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে

যেকোনো একটি আসনে ভিপি নুর এমপি পদে লড়বেন বলে জানা গেছে। মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিতে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানান তিনি। নুরুল হক নুর বলেন, ‘কোনো রাজনৈতিক দলের ব্যানারে নয়, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়তে চাই আমি। তফসিল ঘোষণার পর এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’সাবেক ডাকসু ভিপি নুুরুল হক দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, আমরা নামসর্বস্ব একটি কমিটি ঘোষণা দিতে পারতাম।

কিন্তু সেটা আমরা চাচ্ছি না। আমরা চাই দলটা ঘোষণার প্রথম সপ্তাহেই যেন ৬৪ জেলায় কমিটি দিতে পারি।এদিকে নতুন দল গঠনের কাজে সরকারি সংস্থার লোকজন বাধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন নুর। তিনি বলেন, আমরা কাজ সহজে করতে পারছি না। অনেক জায়গায় বাধা দেওয়া হচ্ছে। যারা কাজ করছে, তাদেরকেও হুমকি দিচ্ছে। এ কারণে সবকিছু বিলম্বিত হচ্ছে। তবে এর মাধ্যমে আমাদের থামিয়ে রাখা যাবে না।