দেশ ছাড়লেন ড. বিজন কুমার শীল

বাংলাদেশ ছাড়লেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এন্টিবডি এবং এন্টিজেন কিট আবিষ্কারক দলের প্রধান, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন অণুজীববিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীল। রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) ভোরে দেশ ছাড়ার কথা রয়েছিল এই খ্যাতিমান অণুজীব বিজ্ঞানীর। শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু বলেন, ভিসা সংক্রান্ত কিছু জটিলতার কারণে ড. বিজন কুমার শীল রোববার সিঙ্গাপুর ফিরে যাচ্ছেন। তবে গণস্বাস্থ্যের করোনা ভাইরাসের এন্টিবডি ও এন্টিজেন কিটের উন্নয়ন এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের বিভিন্ন গবেষণায় ড. বিজন কুমার শীলকে প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে তাঁর ভিসা প্রাপ্তিতে যে সমস্ত কাগজপত্র প্রয়োজন সব বিষয়ে সহযোগিতা করা হবে।

আশা করছি শীঘ্রই তিনি আবার দেশে ফিরে আসবেন। কারণ তিনিও সব সময় দেশে এসে কাজ করার ইচ্ছা পোষণ করেন।’ ড. বিজন কুমার শীল ১৯৯৯ সালে ছাগলের মড়ক ঠেকানোর জন্য পিপিআর ভ্যাকসিন আবিষ্কার করেন। ২০০২ সালে ডেঙ্গুর কুইক টেস্ট পদ্ধতির আবিষ্কারকও ড. বিজন। যা সিঙ্গাপুরে তার নামেই প্যাটেন্ট করানো। ২০০৩ সালে তিনি সার্স ভাইরাসের কুইক টেস্ট পদ্ধতির আবিষ্কার করেছিলেন। এটাও তার নামে প্যাটেন্ট করা।

আরো পড়ুন…বাংলাদেশ দলের প্রথম সুপারস্টার মোহাম্মদ আশরাফুল। নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরেছেন ঘরোয়া ক্রিকেটের সব ধরণের আসরে। যেখানে প্রমাণও করেছেন নিজেকে। টানা তিন সেঞ্চুরির রেকর্ডও গড়েন ঘরোয়া ক্রিকেটে। শাস্তি ভোগ শেষে আবারও জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন দেখেন এই ক্রিকেটার। এ জন্য শ্রীলঙ্কা সিরিজকে লক্ষ্য রেখে মানসিক প্রস্তুতি সেরে রেখেছিলেন তিনি।