দুই সন্তান রেখে গৃহবধূ উধাও

সাত ও চার বছরের দুই ছেলে সন্তান রেখে বাড়ি থেকে পালিয়েছেন চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের এক গৃহবধূ। গত ১৭ আগস্ট তিনি অজানার উদ্দেশে পাড়ি জমান। স্বামীর দেয়া স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা নিয়ে চলে গেছে স্ত্রী আফসানা। তবে ওই গৃহবধূকে ফেরত আসতে অনুরোধ জানিয়েছেন তার ব্যবসায়ী স্বামী। এ ঘটনায় বুধবার (১৯ আগস্ট) ফরিদগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন ওই গৃহবধূর ভাই।

জানা যায়, ১২ বছর আগে ফরিদগঞ্জের গল্লাকপুর বাজারের এক ব্যবসায়ীর মেয়ে আফসানা বেগমের (২৬) সঙ্গে বিয়ে হয় ফরিদগঞ্জের স্থায়ী বাসিন্দা বর্তমানে ঢাকায় অবস্থানরত এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে। তাদের সংসারে দুই ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। ওই গৃহবধূর স্বামী ঢাকায় ব্যবসা করার সুবাদে আফসানা বাবার বাড়িতেই থাকতেন।

গৃহবধূর ভাই জানিয়েছেন, গত ১৭ আগস্ট কাউকে কিছু না বলে তার দুই সন্তানকে বাবার বাড়িতে রেখে তার ব্যবহৃত জিনিসপত্র নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে (বড় ননদ) যাওয়ার কথা বলে অন্যত্র চলে যান। পরে কোথাও খুঁজে না পেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। এ ব্যাপারে গৃহবধূর স্বামী জানিয়েছেন, তার দেয়া স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা নিয়ে চলে গেছে স্ত্রী আফসানা।

আরো পড়ুন…আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ জানিয়েছে, উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি বর্তমানে ভারতের বিহার গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগরে মৌসুমী বায়ু সক্রিয় রয়েছে এবং বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। বিজ্ঞপ্তিতে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরসমূহকে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। সুস্পষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী, লক্ষীপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ১ থেকে ২ ফুট বায়ু তাড়িত জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হতে পারে।