টিকিটের দাম ও করোনা সনদ নিয়ে দিশেহারা বিদেশগামীরা যাত্রীরা

সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটের ওয়ানওয়ে টিকিট কিনতেই বিদেশগামীদের গুনতে হচ্ছে দ্বিগুণেরও বেশি টাকা।চাকরি বাঁচাতে নির্ধারিত দিনের টিকিট কেনার জন্য তারা বিমানের বলাকা ভবনে গেলে তাদেরকে সংশ্লিষ্ট দেশেপ্রবেশের অনুমোদন নেয়ার সার্টিফিকেটের পাশাপাশি করোনাভাইরাস নেগেটিভ সার্টিফিকেট সংগ্রহ করার জন্যপাঠানো হচ্ছে পৃথক দুটি ল্যাবে।

অবশ্য দুবাইগামী ফ্লাইট যাত্রীদের ক্ষেত্রে অ্যাপ্রুভাল বাধ্যতামূলক থাকার পাশাপাশি করোনাভাইরাস পরীক্ষার সার্টিফিকেট শুধু লাগছে একবারই। হতাশাগ্রস্ত এসব বিদেশগামী যাত্রীরা বলছেন, এমনিতেই তারা দীর্ঘদিন দেশে থেকেই বেকার হয়ে অর্থনৈতিক সঙ্কটে রয়েছেন। তার ওপর বিদেশে যেতে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে তাদের টিকিট ক্রয় করা সম্ভব হচ্ছে না।

বিষয়টি সরকারকে বিবেচনা করার অনুরোধ জানান তারা। মতিঝিলের বিমানের বলাকা ভবন কার্যালয়ে খোঁজ নিতে গেলে গতকাল শনিবার দুপুরে হতাশাগ্রস্ত বিদেশগামীদের সাথে কথা বলে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

এদিকে,টরেন্টো, টোকিও, গুয়াংজু ও চেন্নাইসহ নতুন চারটি আন্তর্জাতিক রুটে ডানা মেলতে চায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নভেম্বরের মধ্যেই এসব ফ্লাইট চালু হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।এ অঞ্চলের দেশগুলোর ট্রানজিট যাত্রী পরিবহনে নতুনভাবে সাজানো হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের সূচি।বিশ্লেষকদের মতে, যাত্রী খরা থাকায় কোভিড পরবর্তী সময়ে নতুন রুট চালুর সিদ্ধান্ত বুঝে শুনে নিতে হবে।

গেল দু্ বছরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে ছয়টি অত্যাধুনিক উড়োজাহাজ যোগ হলেও রুট বেড়েছে মাত্র তিনটি।চলতি বছর একাধিক নতুন রুটে যাত্রার উদ্যোগও পিছিয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস মহামারীতে।বিভিন্ন দেশ নিষেধাজ্ঞা না তোলায় বিদ্যমান ১৭টি রুটের মধ্যে বর্তমানে মাত্র চারটি রুটে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।এর মধ্যেই টোকিও, টরন্টোসহ নতুন চারটি রুটে যাত্রার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিমান। টরন্টো ছাড়া বাকি তিনটি রুটে ফ্লাইট চালুর প্রস্তুতিও শেষ হয়েছে।