ঘরের ছাদ ফুটো করে পড়া পাথরেই কোটিপতি যুবক!

আল্লাহ যখন দেন তখন ছপ্পড় ফুঁড়ে দেন, এমন কথা নিশ্চয়ই আপনি অনেক শুনেছেন। কিন্তু এবার সেই কথাই সত্যি হল ইন্দোনেশিয়ার এক যুবক জোসুয়া হুটাগালানগুর ওপর। রাতারাতি দরিদ্র থেকে কোটিপতি হয়ে গিয়েছে এই যুবক।৩৩ বছর বয়সের জোসুয়া যখন নিজের বাড়িতে কাজ করছিল সে সময় আকাশ থেকে তাঁর বাড়িতে পরে এমন এক বস্তু, যা তাঁকে রীতিমতো বড়লোক করে দিয়েছে তাকে।

দরিদ্র থেকে সোজা ১০ কোটির মালিক বনে যান সে।জোসুয়ার বাড়িতে আকাশ থেকে পড়া অতি বিরল একটি উল্কাপিন্ড প্রায় ৪ বিলিয়ন বছর পুরোনো। এটির বাজারে দাম ধরা হয়েছিল ১০ কোটি টাকা।উল্কাপিণ্ডটি মারাত্মক তীব্র গতিতে ছাদে পড়ে ছাদ ফুটে হয়ে নীচে পড়ে মেঝের মধ্যে প্রায় ১৫ সেমি ঢুকে যায়। ঘটনায় প্রথমে মারাত্মক আতঙ্কিত হয়ে পড়েন জোসুয়া। জোসুয়া জানিয়েছে, প্রথম যখন এটি পড়ে, তখন এটি মারাত্মক গরম ছিল কিন্তু পরে এটি ঠাণ্ডা হয়ে যায়।

আরও পড়ুনঃইসলাম ধর্ম বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক পরীক্ষায় মুসলিম সব শিক্ষার্থীকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থান দখল করলেন এক হিন্দু শিক্ষার্থী। ঘটনাটি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের।ইসলামিক স্টাডিজ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমন এন্ট্রান্স টেস্টে অংশ নিয়ে প্রথম হন শুভম যাদব নামের এক শিক্ষার্থী। অমুসলিম ও কাশ্মীরের বাইরে কোনো ছাত্র হিসেবে প্রথমবারের মতো এই কৃতিত্ব অর্জন করেছেন শুভম।

শুভমের বাড়ি ভারতের রাজস্থানের আলওয়ারে। এটা এমন একটা জায়গা যেখানে গরুর ব্যবসা করার দায়ে পেহলু খান নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয় ২০১৭ সালে। নিজের এলাকার ওই ঘটনা খুব নাড়া দিয়েছিল শুভম যাদবকে। ইসলাম কিংবা মুসলমানের ওপর মানুষদের এমন ক্ষোভ কেনো, তা জানার আগ্রহ তৈরি হয় শুভমের মনে।

একজন হিন্দু হয়েও কেনো ইসলামিক স্টাডিজ পড়তে হবে, সেই প্রশ্নের উত্তরে শুভম বলছেন- আমার মতে, পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ভুল বুঝা হয় ইসলামকেই। অন্য কোনো ধর্মকে মানুষ এতটা ভুল বুঝে বলে মনে হয় না। আসলে একটা বিশাল গোষ্ঠি আছে, যারা প্রতিনিয়ত ধর্মটির ভুল ব্যাখ্যা করতে থাকে, আর তাতে করে বিভ্রান্ত হয় সাধারণ মানুষ।তাই ধর্মটাকে ভালোভাবে জানতে হবে বলে আমি মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম বেশ আগেই। সাধারণ কোনো জানা নয়, আমি গভীরে গিয়ে জানতে চাই, তাই এ বিষয়ে মাস্টার্স করার চিন্তা করেছি। বাবা-মাও আমার এমন চিন্তাকে সমর্থন দিয়েছেন, যোগ করেন শুভম।