কোনো কাজ না করে ৪৫ লাখ টাকা পাবেন যারা

নিঃসন্দেহে আকর্ষণীয় একটি অফার! কোনো কাজ না করে জার্মানিতে কিছু মানুষ টানা তিন বছর প্রতি মাসে সোয়া লাখ টাকা (১,২০০ ইউরো) করে হাতে পাবেন। বিনিময়ে গবেষকদের জানাতে হবে এই ৪৫ লাখ টাকা পেয়ে তাদের অনুভূতির কথা।পরীক্ষামূলক এই গবেষণায় অংশ নিতে আগ্রহীদের কাছ থেকে দারুণ সাড়া পাওয়া গেছে। মাত্র এক সপ্তাহে ১৫ লাখের বেশি স্বেচ্ছাসেবী অংশ নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে শর্তহীন এই অর্থ আয়ের জন্য।

আয়োজকেরা মোট ১৫০০ অংশগ্রহণকারী খুঁজছেন, যাদের মধ্যে কমপক্ষে ১২০ জন তিন বছর পর্যন্ত প্রতি মাসে ১২০০ ইউরো করে পাবেন। পরীক্ষামূলক তিন বছরের এই প্রজেক্টের জন্য অংশগ্রহণকারীদের অনলাইনে শুধু সাতটি প্রশ্নপত্রের উত্তর দিতে হবে পরীক্ষামূলক এই প্রজেক্টের ওয়েবসাইটে ঢুকে।

প্রায় দেড় লাখ দাতা সংস্থা অংশগ্রহণকারীদের জন্য করহীন এই অর্থের যোগান দেবে। সবশেষে প্রতি অংশগ্রহণকারী ৪৩,২০০ ইউরো পাবে। এই প্রজেক্টটির উদ্যোক্তা বার্লিনভিত্তিক একটি পাবলিক চ্যারিটি।শর্তহীন অর্থ পাওয়ার ফলে জীবনের অনেক সমস্যারই সমাধান হবে বলে বিশ্বাস করেন ‘মাই বেসিক ইনকাম’ চ্যারিটির কর্মকর্তারা। তারা মনে করেন, বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ রোজগারের চাপ সরিয়ে নিলে মানুষ আরও স্বাধীন,

সৃজনশীল এবং সামগ্রিকভাবে আরও সুখী হবে বলে মনে করেন তারা।জার্মান অর্থনীতি গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান ইয়্যুর্গেন শুপ বলেন, ‘জীবনের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানোর নিশ্চয়তা থাকায় তখন তারা শর্তহীন অর্থ দিয়ে কী করেন তা নিয়ে আমরা বিশ্লেষণ করব। আমরা জানতে চাই শর্তহীন অর্থের সবটুকু তারা ব্যয় করে, না কিছু পরিমাণ সঞ্চয় করে বা কম কাজ করে কিংবা অর্থ থেকে অন্যকে কিছু দান করে।

জানতে চাই, অর্থ কীভাবে মানুষের আচরণকে প্রভাবিত করে? এটা বিজ্ঞানসম্মত একটি কঠিন প্রশ্ন এবং এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সিরিয়াস গবেষণা করা হয়নি।’শর্তহীন মৌলিক আয় বহুদিন ধরে একটি বিতর্কিত বিষয়, যা প্রায়ই মানুষের আদর্শ নিয়ে পক্ষপাতিত্ব করা হয়ে থাকে। মানুষের কাজ না থাকলে কী করে, এটাই থেকে যায় এ বিষয়ের মূল প্রশ্ন। তবে বিরোধীরা মনে করেন,

এতে মানুষকে আরো বেশি অলস হওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়।জার্মানিতে এ ধরনের বেসিক আয়ের প্রকল্পগুলোর জন্য রাজনৈতিক বড় দলগুলোর পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত কেউ এগিয়ে আসেনি।সূত্র : ডয়চে ভেলে