এসআই আকবরের সিম কার্ডে লুকিয়ে আছে অনেক তথ্য!

মাত্র দশ হাজার টাকার জন্য পু-লিশ রায়হান উ-দ্দিনকে (৩০) হ-ত্যা করেছে, এমন কথা মানতে না-রাজ তার মা সালমা বেগম। তিনি মনে করেন, এ হ-ত্যার পে-ছনে কোনো বড় গ্যাং জড়িত। এ-কাধিকবা-র সং-বাদ স-ম্মেলন করেও তিনি বিষয়টি গু-রুত্ব দিয়ে তুলে ধরেছেন। বলেছেন, ছেলের জন্য ১০ হা-জার কেন, ৫০ হাজার চাইলেও দিতাম। রায়হানকে হ-ত্যার আ-লামত যারা ন-ষ্ট করেছেন তাদের গ্রে-ফতারের দাবিও জানান সালমা বেগম।

পলাতক থাকার দী-র্ঘ ২৮ দিন পর গত ১০ নভে-ম্বর গ্রে-ফতার হয়েছেন রায়হান হ-ত্যা মামলার প্র-ধান আসামি এস-আই আকবর। ও-ইদিন অবা-ঙালি খাসিয়ারা আ-কবরকে সিলে-টের কানা-ইঘাটের ডোনা সী-মা-ন্তে বাংলাদে-শি জনতার কাছে হ-স্তা-ন্তর করে। পরে বাংলাদেশি আ-ব্দুর রহিমসহ ক-য়েকজনের স-হযোগিতায় তাকে কৌ-শলে গ্রে-ফতার দেখায় জেলা পু-লিশ।বরখাস্ত-কৃত এসআই আকবরকে পালাতে স-হায়তাকারী পুলিশ ক-র্মক-র্তা কারা? এসব প্র-শ্নের উত্ত-র এখনো অজানা রয়ে গেছে। অ-ধরা রয়ে গেছে তাকে স-হায়-তাকারী আব্দু-ল্লাহ আল নোমানসহ অন্যরা। যদিও সেসব তথ্য উ-দঘাটনে চে-ষ্টা করে যাচ্ছে তদন্ত সং-স্থা পিবিআই।

সম্প্র-তি ভা-রইরাল হওয়া আরে-কটি ভি-ডিওচিত্রে দেখা গেছে, সামাজিক যো-গাযোগ মাধ্যমে লা-ইভে এসে ভার-তীয় খাসি-য়ারা আ-কবরকে আটক করে বাংলা-দেশে পাঠানোর দাবি করেছেন। তাদের দাবি, খাসিয়া হেড ম্যান সোফডিনের কথায় তারা আকব-রকে আ-টক করেন। এরপর সে-ফোডি-নের ক-থামতো তাকে সি-লেটের কা-নাইঘাট ডোনা সীমা-ন্ত দিয়ে বাংলাদেশি আ-ব্দুর রহিমের কাছে হ-স্তান্ত-র করেন।এসআই আ-কবরের হে-ফাজত থেকে ব্য-বহৃত বাংলাদেশি সিম কার্ড, ৩টি ভারতীয় সিম কার্ড, একটি মোবাইল ফোন, এক নারীর ৩টি ছবি ও আ-কবরের একটি ছবি রেখে দেওয়ার বি-ষয়টি ত-থ্য-প্র-মাণ হিসেবে উ-পস্থা-পন করে তারা।

নি-হত রায়-হানের পরি-বারের দাবি, ভা-রতীয় খাসি-য়াদের হাতে থাকা সিম কা-র্ডে আকবরকে সহা-য়তাকারী-দের ত-থ্য প্র-মাণ মিলতে পারে। তাই সেসব সিম উ-দ্ধারের দাবি জানান তারা।এ বিষয়ে পু-লিশ -ব্যু-রো অব ই-নভেস্টি-গেশন (পিবিআই) সিলেটের পু-লিশ সু-পার খালিদ উজ জামান বলেন, “রা-য়হান হ-ত্যাকা-ণ্ডের পর আমরাও বলেছি আক-বরকে আমাদের প্র-য়োজন। রি-মা-ণ্ডে এনে তাকে জি-জ্ঞাসা-বাদও করা হচ্ছে। তবে তদ-ন্তে সহা-য়ক কোনো আলামত পেলে আমরা জব্দ করবো। যদি আ-কবরের ব্যব-হৃত সিম পাওয়া যায়, সে-ক্ষে-ত্রে আরো ত-থ্য-প্র-মাণ মি-লতে পারে। আমরা সেই চে-ষ্টায় রয়েছি।”

আকবরকে গ্রে-ফ-তার করার দিন স-ন্ধ্যায় সংবা-দ স-ম্মে-লন করেন পুলি-শ সুপা-র ফরিদ উদ্দিন আ-হমদ। সাংবা-দিকরা জানতে চান, কেউ আ-কবরকে পুলি-শের কাছে হ-স্তা-ন্তর করেছে কি না? তিনি বলেন, “কেউ হ-স্তা-ন্তর করেনি। অ-বশ্য আমরা পুলিশের সকল কাজে জন-গণের সহ-যো-গিতা নিই। আ-কবরকে গ্রে-ফতার করতে আমা-দের কিছু বন্ধু সহযো-গিতা করেছেন। ”একটি ভি-ডিওতে দেখা গেছে, ভা-রতের খাসিয়ারা আকবরকে আটক করেছে- এমন প্র-সঙ্গে পু-লিশ সুপার বলেন, “আমাদের প-ক্ষ থেকে কোনো ভি-ডিও করা হয়নি। ওই ভি-ডিও কে, কোথায় করেছে তা আমা-দের জানা নেই। এরকম কিছু দেখিনি। তবে তাকে জেলা পু-লিশের কানাইঘাট থানার পু-লিশ গ্রে-ফতার করেছে। ”

গত ১১ অ-ক্টোবর ভোর রাতে রা-য়হানকে পুলি-শ ফাঁ-ড়িতে নি-র্যা-তন করা হয়। পরে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর সকাল ৭টা ৫০ মিনিটের দিকে তার মৃ-ত্যু হয়।‘রায়হান ছি-নতাইকালে গণ-পিটুনি-তে মারা গেছেন’ বলে পু-লিশ দাবি করলেও পরিবার ও স্ব-জনদের অ-ভিযোগ ছিল, পু-লিশই আকবরকে ধরে নিয়ে যায় ফাঁ-ড়ি-তে এবং সেখানে নি-র্যা-তন চালিয়ে হ-ত্যা করে। এ ঘ-টনায় রা-য়হানের স্ত্রী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় হ-ত্যা মা-মলা দায়ের করেন।

পরিবারের অভিযোগ ও মামলার প-রিপ্রেক্ষি-তে সি-লেট মে-ট্রোপলি-টন পুলিশের তদ-ন্ত দল ফাঁ-ড়ি-তে নি-র্যা-তনের ফলে রা-য়হানের মৃ-ত্যুর স-ত্যতা পায়। ঘ-টনায় জ-ড়িত থাকায় ই-নচার্জ আ-কবরসহ চার পু-লিশকে বরখা-স্ত ও তি-নজনকে প্র-ত্যা-হার করে। ব-রখাস্ত-কৃত পুলিশ স-দস্যরা হলেন- ব-ন্দরবা-জার ফাঁ-ড়ির কনস্টে-বল হারুনুর রশিদ, তৌ-হিদ মিয়া ও টিটু চ-ন্দ্র দাস। প্র-ত্যাহার হ-ওয়া পুলিশ সদ-স্যরা হলেন- স-হকারী উপ-পরিদ-র্শক (এএসআই) আ-শেক এলাহী, এএসআই কু-তুব আলী ও কন–স্টেবল সজিব হো-সেন। -ঘটনার পর অ-ন্য ছয়জন -পুলিশ হেফাজতে থা-কলেও আ-কবর পলা-তক ছি-লেন।গত শনিবার (১৪ নভেম্বর) নগরের আ-খালিয়ার নে-হারিপাড়াস্থ নি-হ-তের নিজ বাসায় সং-বাদ স-ম্মেলন করে রা-য়হানের মা সালমা বেগম দাবি করেন, ঘ-টনার দিন তার ছেলের পর-নের টি-শার্ট ও প্যা-ন্ট নীল রঙের ছিল। কি-ন্তু হাসপাতালে দেখা গেছে তার পরনে লাল রংয়ের এক-টি শা-র্ট। প্যা-ন্টও বদ-লানো হয়েছে। যেটা তার শরী-রের চে-য়েও অনেক ছোট ছিল। এটা কারা করেছে, তা তিনি জানেন না। এ-ছাড়া রায়হানের মো-বাইল ফোন ও মানি-ব্যাগ এখনও প-র্যন্ত দেওয়া হয়-নি বলে জানান তিনি। যারা -আলামত নষ্ট করেছেন, গ্রেফ-তার দাবি করেন তিনি। পা-শাপাশি আক-বরকে পালি-য়ে যেতে সহা-য়তা-কারী উ-র্ধ্বত-ন পুলিশ ক-র্ম-কর্তাদে-র শনা-ক্ত করে গ্রে-ফ-তার দাবি জানান।