একনেকে উঠছে ঢাকা বাইপাস, ব্যয় বাড়ছে ১৮৫ শতাংশ

রাজধানীর যানজট নিরসনে গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থেকে মদনপুর পর্যন্ত ৪৮ কিলোমিটার ঢাকা বাইপাস সড়ক চার লেনে উন্নীত করা হবে। চলমান এই প্রকল্পের ব্যয় বাড়ছে ১৮৫ দশমিক ৩০ শতাংশ।মূল প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয় ২৩৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ব্যয় বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ৬৭৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রকল্পটি মার্চ ২০১৬ থেকে জুন ২০২০ সাল মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য ০১ মার্চ ২০১৬ তারিখে একনেক সভায় অনুমোদন করা হয়। নতুন করে প্রকল্পের মেয়াদ জুন ২০২৪ পর্যন্ত বাড়ানো হবে।

মঙ্গলবার (২২ জুন) প্রকল্পটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় উপস্থাপন করা হবে। সভায় সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই বাইপাস সড়ক নির্মিত হলে দেশের উত্তরাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের পণ্যবাহী যানবাহন ঢাকায় প্রবেশ না করেই সরাসরি চট্টগ্রামের পথে যেতে পারবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর (সওজ)।

প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য হলো পাবলিক পাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) কনসেশনারের মাধ্যমে জয়দেবপুর-দেবগ্রাম-ভুলতা-মদনপুর সড়ক (ঢাকা বাইপাস) চার লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নে সার্বিক সহায়তা ও ব্যবস্থাপনা প্রদান। চলমান প্রকল্পটি ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট আর্থিক অগ্রগতি ১৭৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা, যা মোট প্রকল্প ব্যয়ের ৭৩ দশমিক ৪১ শতাংশ।

নানা কারণে প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্রকল্পটি সংশোধন করা হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি ব্যয় বাড়ছে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য। প্রকল্পের আওতায় নতুন করে ৫ দশমিক ২২ হেক্টর ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে। এ খাতে ৪০১ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয় বাড়ছে। এছাড়া অভ্যন্তরীণ ভ্রমণ ব্যয় বাবদ ১৫ লাখ, মূল বেতন খাতে ১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা বাড়ছে। কনসালটেন্সি খাতে ৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা বাড়ছে। এছাড়া আন্তঃমন্ত্রণালয় ভূমি হস্তান্তর ১১৩ দশমিক ৭৩ হেক্টর এবং এ খাতে ৩ কোটি টাকা বাড়ছে। করোনার দ্বিতীয় ধাপে সরকারের নীতির আলো সকল সরকারি প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয়ের আওতায় সকল প্রকার নতুন ও প্রতিস্থাপক হিসেবে যানবাহন কেনা ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত স্থগিত রাখা হয়। ফলে যানবাহন ব্যবহারের চুক্তিভিত্তিক কাজ করা হয়। এ খাতে ৪ কোটি ৫৩ লাখ টাকা বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে।

পিপিপি প্রকল্পের আওতায় চার লেনের ঢাকা বাইপাস নির্মাণ করা হবে। এতে করে নগরীতে পণ্যবাহী পরিবহনের অনেক চাপ কমবে।সওজ-এর প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ আব্দুস সবুর বাংলানিউজকে বলেন, ঢাকা বাইপাস প্রকল্পটি মঙ্গলবার একনেক সভায় উঠবে। আশাকরি এই মেয়াদে প্রকল্পের কাজ সম্পূর্ণ হবে। ইতোমধেই প্রকল্পের চ্যালেঞ্জিং কাজ ভূমি অধিগ্রহণ হয়ে গেছে। বাকি কাজগুলো নির্দিষ্ট মেয়াদে সম্পূর্ণ করতে পারবো। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পর ঢাকার জটলাও অনেকাংশে কমে যাবে বলে আশা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *