ইয়েমেনে ধ’র্ষ’কের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্যকরের দৃশ্য টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার

ইয়েমেনের রাজধানী সানায় তিন বছরের শিশুকে ধ’র্ষ’ণের পর হ’ত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত ৪১ বছর বয়সী এক ধ’র্ষ’ককে জনসম্মুখে গু’লি করে মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্য’কর করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। সোমবার (৫ অক্টোবর) একটি পাবলিক স্কয়ারে ওই ব্যক্তির মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল এক প্রতিবেদনে বলছে, সোমবার সানায় মুহাম্মদ আল-মাঘরাবি নামের এক ধ’র্ষ’ককে একটি একে রাইফেল দিয়ে গু’লি করে হ’ত্যা করা হয়েছে।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, মাটিতে একটি চাদর বিছানো আছে। চাদরের ওপর শোয়ানো হয়েছে মাঘরাবিকে। দুই হাত বাঁ’ধা হয়েছে পেছনের দিকে। পরে সেনাবাহিনীর এক সদস্য ওই ধ’র্ষ’কের পি’ঠের দুই পাশে দুই পা রেখে দাঁড়িয়ে যান। এ সময় ওই সদস্যের হাতে একে রাই’ফেল দেখা যায়।শহরের প্রধান স্কয়ারে ওই ধ’র্ষ’কের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্য’কর দেখতে হাজার হাজার মানুষ আশ-পাশে অবস্থান নেন।

সোমবার মাঘরাবিকে প্রিজন ভ্যানে করে সানার ওই স্কয়ারে নেয়া হয়। পরে পেছন থেকে পিঠে গু’লি চালিয়ে তাকে হ’ত্যা করা হয়। তবে ওই শিশুকে ধ’র্ষ’ণ ও হ’ত্যার ঠিক কতদিনের মাথায় ধ’র্ষ’কের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্য’কর করা হলো সেবিষয়ে তথ্য দেয়নি ডেইলি মেইল।দেশটির টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে ওই ধ’র্ষ’কের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্য’করের দৃ’শ্য সরাসরি দেখানো হয়। ঘটনাস্থলে থাকা হাজার হাজার মানুষ তাদের মোবাইল ফোনে মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্যকরের দৃশ্য ধারণ করেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের তথ্য বলছে, ইয়েমেনের সব আইন শরীয়তের বিধান অনুযায়ী তৈরি করা হয়। দেশটির শরীয়াহ আইনে খু’নের দায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তির সর্বোচ্চ শা’স্তি কার্য’করের বিধান রয়েছে। তবে ভিক’টিমের পরিবারের যদি অভিযুক্তের শা’স্তি লাঘ’বের সুপারিশ করে তবেই স’র্বোচ্চ শা’স্তি থেকে রেহাই মেলে।দেশটিতে প্রতিনিয়ত অপ’রাধী’দের শির’শ্ছেদ করা হলেও শরীয়াহ আইনে কীভাবে স’র্বোচ্চ শাস্তি কার্যকর করা হবে সেবিষয়টি পরিষ্কার করা হয়নি।