আবরারের কী দোষ ছিল, প্রশ্ন মায়ের

গত বছরের ৫ অক্টোবর বিকেলে মা রোকেয়া বেগম, ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজকে নিয়ে ঘরে বসে গল্প করছিলেন বুয়েটছাত্র আরবার ফাহাদ। পরের দিন ৬ অক্টোবর আবরার ফাহাদ ঢাকা যাবেন। এ জন্য বাসের টিকিটও কেটে রেখেছিলেন। গল্পের ফাঁকে ৫টা ৩২ মিনিটে তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। এটাই ছিল তাঁর জীবনের শেষ পোস্ট।

কুষ্টিয়ার বাসায় বসে মঙ্গলবার আবরারের ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ বলছিলেন, ‘সেদিন বিকেলে সোফায় বসে আমাদের সামনেই পোস্টটি দিয়েছিলেন ভাই। মাত্র একদিন পরেই বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে ফেরার কথা ছিল। এরপর কী নৃ’শং’স ঘটনা ঘটল, সবাই দেখেছেন।’আবরারের সেই পোস্টে ৪ লাখ ২৭ হাজার লাইক পড়েছে। ৭০ হাজারবার শেয়ার হয়েছে।

তিন প্যারার পোস্টটি মা রোকেয়া বেগম পড়েছেন ও দেখেছেন। মায়ের প্রশ্ন, ‘আমার ছেলে তো নিজের কথা কিছু বলেনি বা লেখেনি। যেটা লিখেছে সেটা তো সে কোনো না কোনো বইয়ে পড়েছিল। সেই পড়ালেখা যদি তাঁর জীবন কেড়ে নেয়, তাহলে বইগুলো কেন আছে? আমার ছেলের কী দো’ষ ছিল?’

রোকেয়া বেগম ছেলেকে কখনোই রাজনীতি করতে দিতেন না। বলতেন, রাজনীতি করলে পড়াশোনা হবে না। রাজনীতিতে জড়ালে সাম’য়িক হয়তো ভালো থাকবে। কিন্তু দেশের রাজনীতিতে পালা বদল হলে কখনোই কেউ ভালো থাকে না।
ছেলে হ’ত্যার বিচার নিয়ে আশাবাদী মা রোকেয়া বেগম। তিনি বলেন, তিনি প্রত্যেক আ’সামির সর্বো’চ্চ শা’স্তি মৃ’ত্যুদ’ণ্ড চান। ঘটনার পর থেকে যেভাবে পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গণমাধ্যম কাজ করেছে, তাতে তাঁর পরিবার খুবই কৃতজ্ঞ।

তবে তিনজন আ’সামি বাইরে থাকায় তাঁরা আত’ঙ্কিত। জানালেন, এই এক বছরে দেশ-বিদেশের অনেকেই ফোন করে তাদের খোঁজ নিয়েছেন। আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ এক সপ্তাহ আগে ঢাকায় গেছেন। ছেলে হ’ত্যার বা’দী হিসেবে সাক্ষ্য দিতে এই মাস তাঁকে ঢাকাতেই থাকতে হচ্ছে। ছেলে হ’ত্যার পর আর ঢাকায় যেতে মন চায় না মায়ের। ছেলের স্মৃতি মনে করে ঢাকাতে যেতে পারেন না। হ’ত্যা মা’মলার রা’য়ের দিনও তিনি ঢাকায় যেতে চান না।