আগুন লাগলেই সতর্ক করবে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের তৈরি রোবট

রোবটটি তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে রাসবেরি পাই মাইক্রোপ্রসেসর এবং আর্দুইনো মেগা মাইক্রোকন্ট্রোলার। রোবটটির সঙ্গে সরাসরি কথা বলা যাবে, শুধু তাই নয় এর মধ্যে এমন কিছু সেন্সর রয়েছে যা বিভিন্ন ধরনের সিগন্যাল দিবে।

তারা আরো বলেন, রোবটটিকে প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক কিংবা বাচ্চাদের যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দেয়ার মাধ্যমে নতুন নতুন কিছু শেখানোর কাজেও ব্যবহার করা যাবে। দেশের স্কুল-কলেজ পড়ুয়া কোমলমতি শিক্ষার্থীদের রোবট তৈরিতে আকৃষ্ট করার একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা এটি। ভবিষ্যতে রোবটটিকে আরো উন্নত করা সম্ভব, এটাকে চাইলে প্রায় প্রত্যেক দিনই আপডেট করা যাবে।

টিম কোয়ান্টা রোবটিক্সের অন্যতম সদস্য এবং ব্লুবেরি আবিষ্কারকদের একজন সঞ্জিত মণ্ডল নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, আসলে সত্যি বলতে অনুভূতিটা অনেক দারুণ, কারণ নিজের বানানো কোনো একটা জিনিস দেখতে খুব ভালো লাগে ছোটোবেলা থেকেই।

সঞ্জিত মণ্ডল আরো বলেন, আমার শখ ইলেকট্রনিক্স। ছোটোবেলা থেকে অনেক প্রজেক্ট করি ইলেকট্রনিক্স প্রজেক্ট বা বিভিন্ন সাইন্স প্রজেক্ট। আমি নাসা স্পেইস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮ এর রিজিয়ন্যাল চ্যাম্পিয়ন ছিলাম। সামনে আরো ভালোকিছু করার সুযোগ চাই, সবার সহযোগিতা এবং আশীর্বাদ চাই।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে সঞ্জিত মণ্ডলের নেতৃত্বে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো তিন শিক্ষার্থী মিলে তৈরি করেছিলো দেশের চতুর্থ মানবাকৃতির রোবট ‘সিনা’। মাত্র দুইমাসে প্রায় ৩৮ হাজার টাকা ব্যায়ে এ রোবটটি তৈরি করা হয়েছিলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *