মঈন আলীকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য, তসলিমাকে ধুয়ে দিলেন আর্চার

ইংলিশ অলরাউন্ডার মঈন আলী একজন ধার্মিক মানুষ। ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে তিনি মদ্যপান সমর্থন করেন না।সেই বিশ্বাস থেকেই আইপিএলে তার দল চেন্নাই সুপার কিংসকে (সিএসকে) নিজের জার্সি থেকে মদ প্রস্তুতকারক সংস্থার লোগো সরিয়ে নিতে বলেছিলেন। তার অনুরোধ রাখাও হয়েছে। ফলে মঈন এখন মদের লোগো ছাড়া জার্সি পরতে পারবেন।

নিজের ধর্মের প্রতি বিশ্বস্ত থাকতে মঈন আলী কোনো মদ্য প্রস্তুতকারক সংস্থাকে প্রমোট করেন না। এর আগে কোহলির দল ব্যাঙ্গালুরুর জার্সি হোক, বা ইংল্যান্ডের জাতীয় দলের জার্সি- সব ক্ষেত্রেই মঈন এই রীতি মেনে চলেছেন। চেন্নাইর নতুন জার্সিতে SNJ 10000 এর লোগো আছে। যা চেন্নাইয়ের পানীয় প্রস্তুতকারক কোম্পানি ‘এসএনজে’র একটি শাখা। মঈনের অনুরোধ রেখেই সিএসকে তার জার্সি থেকে সংশ্লিষ্ট লোগো সরিয়ে দিয়েছে।

কিন্তু মঈনের জার্সি থেকে এই লোগো সরিয়ে ফেলা নিয়ে এক বিতর্কিত টুইট করেছেন বাংলাদেশের বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘মঈন আলী ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত না থাকলে সিরিয়ায় গিয়ে আইসিসে (জঙ্গি সংগঠন) যোগ দিতেন। ‘

‘নির্বাসিত’ এই লেখিকার টুইট নিয়ে তুমুল সমালোচনার জন্ম হয়েছে। এমনকি সমালোচনায় যোগ দিয়েছেন মঈন আলীর জাতীয় দলের সতীর্থ ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চারও। তসলিমার টুইটটি রিটুইট করে জোফরা আর্চার লিখেছেন, ‘আপনি ঠিক আছেন তো? আমার মনে হয় আপনি ঠিক নেই’!

তবে ঘটনার এখানেই শেষ নয়। তসলিমা পরে আরও এক টুইটে লিখেছেন, ‘হেটার্সরা ভালো করেই জানে মঈন আলীকে নিয়ে আমার টুইটটি ছিল নিছক মশকরা। কিন্তু তারা এটাকে একটা ইস্যু বানিয়ে আমাকে আক্রমণ করছে কারণ আমি মুসলিম সমাজকে সেক্যুলার বানানোর চেষ্টা করছি এবং আমি ইসলামি গোঁড়ামির বিরোধিতা করছি। মানব সভ্যতার সবচেয়ে বড় ট্রাজেডি হলো, নারীবাদী বামরা নারী-বিরোধী ইসলামিস্টদের সমর্থন করে। ‘

তসলিমার এই টুইটও রি-টুইট করেছেন আর্চার। তিনি লিখেছেন, ‘মশকরা? কেউ তো হাসছে না, এমনকি আপনি নিজেও না। আপনি অন্তত যেটা করতে পারেন, টুইটটা ডিলিট করে দিতে পারেন। ’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *